Diet plan

আপনি কি কখনও ডায়েট (Diet plan) করে ব্যর্থ হয়েছেন? এমনকি যে ডায়েট করে ওজন কমিয়েছে তার কাছে রুটিন মেনেও ওজন কমাতে পারছেন না ?  বেশিরভাগ লোক ডায়েটে ব্যর্থ হয় সঠিক জ্ঞান । তারা সাধারণত ব্যর্থ হয় কারণ তারা এমন একটি ডায়েট বেছে নিয়েছিল যা তারা বেশিদিন করতে পারেনি এবং ডায়েট শুরু করার আগে তারা সত্যই প্রস্তুত ছিল না ।

এমন কিছু বিষয় রয়েছে যা আপনার ওজন হ্রাস ডায়েট (Diet plan) পরিকল্পনা শুরু করার আগে আপনাকে ডায়েট পরিকল্পনা সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। তবেই ডায়েট পরিকল্পনা কার্যকর হবে এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, আপনার জন্য নিরাপদ হবে কিনা !

নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত রাখুন

ডায়েটিং (diet) সহজ নয়। এমনকি আপনার ডায়েটে পর্যাপ্ত পরিমান পুষ্টিকর খাবার থাকার পরও না।  কারন হটাত এমন কিছু খেতে মনে চাইবে যা আপনার ডায়েটে নেই। সারাদিন কাজ শেষে জিমে যেতে আর মন চাইবে না। নিজেকে এমন মানুষিক ভাবে প্রস্তুত করুন যেন আপনি এই জার্নিটা উপভোগ করেন। যে খাবার গুলা খাবেন সেগুলা যেন জোর করে না খেতে হয়। তাহলে আপনি খুব শিগ্রই ফলাফল দেখতে পাবেন ।

এই ডায়েটে (diet) প্ল্যানে কি পর্যাপ্ত ক্যালরি আছে ?

একজন সক্রিয় প্রাপ্ত বয়স্কের পুরুষদের জন্য দৈনিক গড়ে  2,500 kcals  এবং মহিলাদের জন্য 2,000 kcals প্রয়োজন।  তবে ডায়েটিংয়ের সময় আপনি যে পরিমান ক্যালরি খাবেন তার থেকে বেশি পরিমান ক্যালরি  আপনাকে খরচ করতে হবে। এই পদ্ধতিকে বলা হয় ব্যালেন্স ডায়েট ( Balanced Diet )

আমেরিকান নিউট্রিশনিস্ট কেরি টরেন্স বলেছেন, “একটি সাধারণ ও উত্তম  গাইড হ’ল প্রতি সপ্তাহে 1 এলবি এর চর্বি কমানো লক্ষ্য নিরধারব করা”। এটি অর্জনের জন্য, তিনি পরামর্শ দেন যে,  আপনি আপনার সাধারণ খাওয়ার পরিকল্পনা থেকে প্রতিদিন 500 ক্যালোরির ঘাটতি করতে হবে। এর মানে আপনি প্রতিদিন যে পরিমান ক্যালরি খাবেন তার থেকে 500 ক্যালোরি বেশী খরচ করতে হবে। এটি  করার সর্বোত্তম উপায় হ’ল খাবারের ডায়েরি করে রাখা যাতে আপনি ঠিক কী পরিমাণ, কী এবং কখন খাচ্ছেন এবং পান করছেন তা বুঝতে পারবেন।

শিশু, কিশোর এবং গর্ভবতী মহিলাদের বিশেষ আলাদা আলাদা পরিমান ক্যালরির প্রয়োজন হয়। এবং তাদের যে কোনও বিধিনিষেধ খাওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণের সময় ডাক্তার দ্বারা তদারকি করা উচিত। একইভাবে, যাদের কোন শারীরিক সমস্যা রয়েছে তাদের ওজন হ্রাস পরিকল্পনা শুরু করার আগে তাদের ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

এটা কি ব্যালেন্স ডায়েট ( Balanced Diet plan ) ?

ডায়েটের খাবার গুলাতে যদি খাবারের অন্যান্য উপাদানের থেকে শর্করার পরিমান বেশী থাকে বা ডায়েট শুধুমাত্র কয়েকটা খাবারের মধ্যে ( যেমনঃ বাঁধাকপি, স্যুপ ডায়েট ) সীমাবদ্ধ থাকে তাহলে সেটা সুষম ডায়েট বা ব্যালেন্স ডায়েট ( Balanced Diet plan)  না। এছাড়াও এই ধরনের ডায়েট আপনাকে পুষ্টির ঘাটতির ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।

দীর্ঘদিন ধরে এই ডায়েট (diet) ফলো করা যাবে কিনা ?

আপনি কি দীর্ঘ সময়ের জন্য এই ডায়েট ফলো করতে পারবেন ? ডায়েট পিরিয়ড শেষ হয়ে গেলে বা আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত ওজনে  পৌঁছায় গেলেও কি এই ডায়েট প্ল্যান ফলো করতে পারবেন ? স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা এবং সুষম ডায়েট খাওয়া এমন একটি জিনিস যা আপনাকে আপনার জীবনযাত্রায় স্থায়ীভাবে ফিট থাকতে গেলে আপনাকে পালন করতে হবে। আর  আপনি যদি আপনার পুরানো খাওয়ার অভ্যাসের দিকে ফিরে যান তবে আপনার ওজন আবার পুনরাই আগের অবস্থায় ফিরে যাবে। ডায়েটের খাবার ঠিক করার আগে আপনাকে অনেক কিছু নিয়ে ভাবতে হবে যেন আপনি এটি দীর্ঘদিন কোন সমস্যা ছাড়া ফলো করতে পারেন। যেমন ধরুন আপনি যদি প্রচুর ট্রাভেল করে থাকেন বা বিজনেসের জন্য বেশীর ভাগ সময় বাইরে খান। সেজন্য আপনাকে এমন খাবার সিলেক্ট করতে হবে যেন ওই খাবার গুলা খুব সহজেই পাওয়া যায়। তা নাহলে ডায়েট প্ল্যান বেশিদিন মানতে পারবেন না।

এই ডায়েটে ওজন কমানো আসলে সম্ভব কিনা ?

আমরা অনেক সময়  বিভিন্ন ডায়েট প্ল্যানে বলা হয়ে থাকে যে, মাত্র এক সপ্তাহে এত কেজি ওজন কমান যা বাস্তবে সম্ভব নয়। আর যদি ওজন কমেও থাকে, তারপর ও আপনার দেহে অনেক পুষ্টির ঘাটতি হয়ে যাবে। আমেরিকান নিউট্রিশনিস্ট কেরি টরেন্স বলেন, ”যে ডায়েটে প্রতি সপ্তাহে ১ kg – ২ kg পরিমান ওজন কমে সেটা হলো নিরাপদ ডায়েট। কিন্তু এটা বয়সের জন্য কম বেশী হতে পারে ”। ওজন কমানোর জন্য একটি লক্ষমাত্রা ঠিক করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। হোক সেটা অনেক দ্রুত বা ধীরে ধীরে। কারন আপনি কখনও চাইবেন না, ওজন কমাতে যেয়ে  আপনি দুর্বল এবং অসুস্থ হয়ে পড়েন। ডায়েট শুরুর আগে অবশই আপনার BMI মেপে নিবেন। তাহলে আপনি বুজতে পারবেন, আপনার কতটুকু ওজন কমানো উচিত এবং আপনার টার্গেটের ওজন আপনার পক্ষে স্বাস্থ্যকর কিনা।

এটা নিরাপদ কিনা !

 কোন একটি ডায়েট ফলো করা আপনার বন্ধু বা ফ্যামিলির কোন সদস্য ফলাফল পেয়েছে তারমানে এই নয় যে এই ডায়েটও আপনার ওজন কমবে এবং এটা আপনার জন্য নিরাপদ। কারন বয়স, ওজন, উচ্চতা, শারীরিক খমতা অনুযায়ী ডায়েট প্ল্যান ভিন্ন হয়ে থাকে। এজন্য ভালো ফলাফল পেতে হলে ডায়েট শুরুর পূর্বে অবশই এক্সপার্টের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

এগুলা হলো যে কোন ডায়েটের সাধারন কিছু তথ্য। যা আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে। আশা করি এখন থেকে ডায়েট শুরুর পূর্বে এই বিষয় গুলা জেনে নিবেন বা কোন ডাক্তারের কাছে থেকে পরামর্শ নিবেন।

আপনি কি কি ডায়েট ফলো করছেন বা কোন ডায়েট ফলো করা আপনি উপকার পেয়েছেন নিচে আমাদের অবশই কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here